• বুধবার, ২১ ফেব্রুয়ারী ২০২৪, ১১:৫০ পূর্বাহ্ন
শিরোনাম:
ভাষাশহীদদের প্রতি হালিশহর থানার শ্রদ্ধা নিবেদন সিন্দুকছড়ি জোনের মাসিক মতবিনিময় সভা অনুষ্ঠিত বাংলাদেশ মফস্বল সাংবাদিক ইউনিয়নের চট্টগ্রাম জেলার আহ্বায়ক কমিটি গঠন আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা উপলক্ষে বই পাঠ উৎসব অনুষ্ঠিত নাইক্ষ্যংছড়িতে আইন-শৃঙ্খলা সভায়- খাদ্যশস্য,ভোজ্য ও জ্বালানী তেল পাচার বন্ধ ও ৫ স্কুল খুলে দেয়ার সিদ্ধান্ত রাঙ্গামাটিতে ৩৫০ পিস ইয়াবা সহ দুই মাদক ব্যবসায়ী আটক সাভারে শহীদ মিনারের উদ্বোধন করেন: মঞ্জুরুল আলম রাজীব লামায় সন্ত্রাসী হামলায় মিয়ারাজ নামের এক ক্ষুদ্র ব্যবসায়ী রক্তাক্ত আহত হয়ে হসপিটালে কাতরাচ্ছে নাইক্ষ্যংছড়ি কাঠ ব্যবসায়ী সমিতির নির্বাচনে বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় নিবার্চিত হওয়ার আভাস গুইমারা থানায় অনুষ্ঠিত হলো জমজমাট ব্যাডমিন্টন প্রতিযোগিতার ফাইনাল এবং র‍্যাফেল ড্রঃ অনুষ্ঠিত

মগজখেকো অ্যামিবায় আক্রান্ত হয়ে যুক্তরাষ্ট্রের ফ্লোরিডায় একজনের মৃত্যু

অনলাইন ভার্সন
অনলাইন ভার্সন
আপডেটঃ : শনিবার, ৪ মার্চ, ২০২৩

বিরল মগজখেকো অ্যামিবায় আক্রান্ত হয়ে যুক্তরাষ্ট্রের ফ্লোরিডায় একজনের মৃত্যু হয়েছে বলে জানিয়েছেন সেখানকার কর্মকর্তারা। খবর সিএনএনের। নিহত ব্যক্তির নাম প্রকাশ করা হয়নি। দক্ষিণপশ্চিম ফ্লোরিডার শার্লট কাউন্টির স্বাস্থ্য বিশেষজ্ঞরা বলছেন, যিনি মারা গেছেন তিনি সম্ভবত ট্যাপের পানি দিয়ে নাক ধুয়েছিলেন, আর সে পথেই নেগলেরিয়া ফাওলেরি মস্তিষ্কে চলে গিয়েছিল।
এই মস্তিষ্কখেকো অ্যামিবা সাধারণত নাক দিয়ে ঢুকে মস্তিষ্কে আক্রমণ করে তবে এই অ্যামিবা যে পানিতে থাকে তা পান করলে কোনো সমস্যা হয় না, বলছেন কর্মকর্তারা। মস্তিষ্কে সংক্রমণের পর বেশিরভাগ ক্ষেত্রেই আক্রান্ত ব্যক্তি মারা যান বলে যুক্তরাষ্ট্রের সেন্টারস ফর ডিজিজ কন্ট্রোল অ্যান্ড প্রিভেনশনের (সিডিসি) বরাত দিয়ে জানিয়েছে বিবিসি।
এই মস্তিষ্কখেকো অ্যামিবা সাধারণত সুইমিং পুল,  হ্রদ বা পুকুরের খানিকটা উষ্ণ পানিতে থাকে। নাক দিয়ে মস্তিষ্কে গেলে এই অ্যামিবা প্রাণঘাতী হয়ে ওঠে কিন্তু পাকস্থলীর এসিড এককোষী অনুজীবকে মেরে ফেলায় সেখানে এটি বিপজ্জনক হতে পারে না। আক্রান্ত ব্যক্তি যে রোগে আক্রান্ত হয়, তাকে সাধারণত অ্যামেবিক মেনিনজেনসেফালিটিস বলা হয়। এর উপসর্গের মধ্যে আছে মাথাব্যাথা, জ্বর, বমি বমি ভাব, বমি, ঘাড় শক্ত হয়ে যাওয়া, ভারসাম্য হারানো, খিঁচুনি ও হ্যালুসিনেশন। সিডিসির হিসাবে, প্রতি বছর তিনজনের মতো মার্কিনি এই রোগে আক্রান্ত হয় যাদের বেশিরভাগকেই বাঁচানো যায় না।
১৯৬২ থেকে ২০২১ সাল পর্যন্ত আক্রান্ত ১৫৪ জনের মধ্যে কেবল ৪ জন বাঁচতে পেরেছে। তবে শীতকালে সাধারণত এই অ্যামিবার সংক্রমণ দেখা যায় না, বলছে সিডিসির তথ্য।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এই ক্যাটাগরির আরো নিউজ

You cannot copy content of this page

You cannot copy content of this page