• বুধবার, ২১ ফেব্রুয়ারী ২০২৪, ১২:১৯ পূর্বাহ্ন
শিরোনাম:
সিন্দুকছড়ি জোনের মাসিক মতবিনিময় সভা অনুষ্ঠিত বাংলাদেশ মফস্বল সাংবাদিক ইউনিয়নের চট্টগ্রাম জেলার আহ্বায়ক কমিটি গঠন আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা উপলক্ষে বই পাঠ উৎসব অনুষ্ঠিত নাইক্ষ্যংছড়িতে আইন-শৃঙ্খলা সভায়- খাদ্যশস্য,ভোজ্য ও জ্বালানী তেল পাচার বন্ধ ও ৫ স্কুল খুলে দেয়ার সিদ্ধান্ত রাঙ্গামাটিতে ৩৫০ পিস ইয়াবা সহ দুই মাদক ব্যবসায়ী আটক সাভারে শহীদ মিনারের উদ্বোধন করেন: মঞ্জুরুল আলম রাজীব লামায় সন্ত্রাসী হামলায় মিয়ারাজ নামের এক ক্ষুদ্র ব্যবসায়ী রক্তাক্ত আহত হয়ে হসপিটালে কাতরাচ্ছে নাইক্ষ্যংছড়ি কাঠ ব্যবসায়ী সমিতির নির্বাচনে বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় নিবার্চিত হওয়ার আভাস গুইমারা থানায় অনুষ্ঠিত হলো জমজমাট ব্যাডমিন্টন প্রতিযোগিতার ফাইনাল এবং র‍্যাফেল ড্রঃ অনুষ্ঠিত ঘুমধুম সীমান্ত দিয়ে মিয়ানমার থেকে পালিয়ে আসা সেনা, সীমান্তরক্ষী সদস্য, শুল্ক কর্মকর্তাসহ ৩৩০ জনকে হস্তান্তর

চট্টগ্রামে জেএমবি নেতার ২০ বছর কারাদণ্ড

অনলাইন ভার্সন
অনলাইন ভার্সন
আপডেটঃ : মঙ্গলবার, ৯ মে, ২০২৩

নিষিদ্ধি ঘোষিত জঙ্গি সংগঠন জামাআতুল মুজাহিদীন বাংলাদেশের (জেএমবি) চট্টগ্রাম জেলা শাখার সাবেক কমান্ডার এরশাদ হোসাইন ওরফে মামুনকে ২০ বছরের সশ্রম কারাদণ্ড দিয়েছেন আদালত। একই সঙ্গে তাকে ২০ হাজার টাকা অর্থদণ্ড, অনাদায়ে আরও এক বছর বিনাশ্রম কারাদণ্ড দেওয়া হয়। একই মামলায় অভিযোগ প্রমাণিত না হওয়ায় বাকি ৩ আসামিকে খালাস দিয়েছেন আদালত। 

খালাসপ্রাপ্ত আসামিরা হলেন, বুলবুল আহমেদ সরকার ওরফে ফুয়াদ (২৬), মো. সুজন (২৪) ও মাহাবুবুর রহমান ওরফে খোকন (৩৫)। মঙ্গলবার (৯ মে) চতুর্থ অতিরিক্ত চট্টগ্রাম মহানগর দায়রা জজ শরীফুল আলম ভুঁঞা এ রায় ঘোষণা করেন।  বিষয়টি  নিশ্চিত করেছেন সংশ্লিষ্ট আদালতের বেঞ্চ সহকারী ওমর ফুয়াদ। তিনি বলেন, গত ১১ এপ্রিল আলোচিত মামলাটির যুক্তিতর্ক উপস্থাপন শেষ হয়। আজ (মঙ্গলবার) নির্ধারিত দিনে রায় ঘোষণা করেন আদালত।

আদালত সূত্র জানায়, গোপন বৈঠকের খবর পেয়ে ২০১৫ সালের ২৩ মার্চ নগরের আকবরশাহ থানার এনআর স্টিল মিলের সামনের একটি ভাড়া করা ঘরে অভিযান চালায় পুলিশ। এ সময় আসামি এরশাদ হোসাইনকে বিস্ফোরক দ্রব্য ও বোমা তৈরির সরঞ্জামসহ গ্রেপ্তার করা হয়। এ ঘটনায় আকবর শাহ থানায় এরশাদের নাম উল্লেখ এবং দুই থেকে তিনজন অজ্ঞাতনামাকে আসামি করে মামলা দায়ের করে পুলিশ।

এদিকে ২০১৫ সালের শেষের দিকে নগরের কর্ণফুলী থানা এলাকা থেকে বুলবুল আহমেদ, মো. সুজন ও মাহাবুবুর রহমানকে গ্রেপ্তার করা হয়। পরবর্তীতে তাদেরকে আকবর শাহ থানায় দায়ের হওয়া মামলায় গ্রেপ্তার দেখানো হয়। ২০১৬ সালের এপ্রিলে আকবর শাহ থানা পুলিশ চারজনের বিরুদ্ধে আদালতে অভিযোগপত্র জমা দেয়। এরপর ২০২০ সালের ২৪ নভেম্বর চার জনের বিরুদ্ধে আদালতে অভিযোগ গঠন হয়। আইনি প্রক্রিয়া শেষে আজ (মঙ্গলবার) রায় ঘোষণা করেন আদালত।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এই ক্যাটাগরির আরো নিউজ

You cannot copy content of this page

You cannot copy content of this page